14
Dec

ঘর ছোট, কিন্তু প্রয়োজন অনেক স্টোরেজ …

সৃজনশীলতা আর ভালবাসার গাঁথুনি দিয়েই তৈরি করা যায় আপনার ছোট্ট আবাসস্থলটিকে স্বপ্নিল আর বর্ণময়। একটু লক্ষ্য করলে দেখা যায়, প্রতিটি বাসায় কোনও না কোনও স্থানে অল্প হলেও কিছু জায়গা অব্যবহৃত অবস্থায় থাকে।যা কোনও কাজেই ব্যবহৃত হয়না, বরং শুধু শুধু জায়গাটা পরে থাকে। কিন্তু গাঠনিক আর কার্যকরী দিক চিন্তা করে ঘরের এই অব্যবহৃত স্থানটিকেই বানিয়ে নিতে পারি বহুমাত্রিক কাজে ব্যবহৃত একটি গুরুত্বপূর্ণ স্থান হিসেবে।
শুধু তাই নয়, অব্যবহৃত এই স্থানটিকে যদি স্ক্রিনিং করে একটা স্টোরেজের মতো করে নেই, তবে ঘরের এমন কিছু জিনিসপত্র আছে যা চোখের সামনে থাকলে ভালো লাগেনা তা সহজেই আড়াল করে নেয়া যাবে।
তবে অনেকসময় আবার এই হিডেন স্টোরেজকে অনেক মজাদার আর আকর্ষণীয়ভাবে তৈরি করা যায়। যেমন, উদাহরণস্বরূপ বলা যায়, ছোট্ট সোনামণিদের বাথরুমে যদি একটা ফলস দেয়াল তৈরি করা হয় একদম আসল দেয়ালের মতো করে, তবে কিন্তু এই দুই দেয়ালের মধ্যবর্তী স্থানে বানিয়ে নেয়া যাবে প্রয়োজনীয়ও সামগ্রী রাখার জন্য ড্রয়ার এবং তাক। আর এই একই কৌশল অবলম্বন করা যায়, যদি ঘরের ভেতর অফিসরুম থাকে কিংবা যেকোনো রুমে অথবা বাথরুমে।
তাই বলা যায় আপনার ছোট্ট ঘরে যদি একটুবেশী স্টোরেজের পরিমান থাকে তবে আসলেই আপনি ভাগ্যবান। কারন এইসব স্টোরেজ ব্যাবহার করা মানে আপনার ঘর আরও বেশি ছিমছাম আর পরিপাটি থাকা। যেমন ধরা যাক, বাসায় যখন তখন মেহমান আসতেই পারে। তাই বলে কি আপনার শৌখিন বসার ঘর বা গেস্টরুমে বিছানা, বালিশ, তোশক দিয়ে ভরপুর করে রাখবেন? মোটেও নাহ। যদি আপনি মেহমানের জন্য টেম্পোরারি ফ্লরিং বেডের ব্যবস্থা করতে পারেন তবে কিন্তু খুব সহজেই তা ফোল্ড করে স্টোরেজে রেখে আড়াল করে ফেলতে পারেন।
তবে এই হিডেন স্টোরেজের সবচেয়ে উপযোগী ব্যাবহার করা যায় রান্নাঘরে। অনেকবেশি স্টোরেজের প্রয়োজন হয় রান্নাঘরে। যদি স্লাইডিং ডোর দিয়ে করা যায় তবে তো আরও বেশি ব্যাবহার উপযোগী এবং কার্যকরী হবে এই হিডেন স্টোরেজগুলো।